সুস্বাস্থ্য.কম

সুস্থ্য দেহ ও সতেজ মনের জন্য...

  • Increase font size
  • Default font size
  • Decrease font size

চোখে ছানি পরা

E-mail Print

ক্যামেরার লেন্সের (Lens) মতো আমাদের চোখের ভেতরেও একটি লেন্স রয়েছে যাকে সংকোচিত ও প্রসারিত করার মাধ্যমে আমরা যথাক্রমে দুরের ও কাছের জিনিসকে স্পষ্ট দেখতে পাই। এই লেন্সটি অস্বচ্ছ হয়ে গেলে আমরা চোখে ঝাপসা দেখি এমনকি কোনো কোনো সময় কিছুই দেখতে পাইনা। লেন্সের এই ঝাপসা হয়ে যাওয়া রোগটির নামই ছানি পড়া বা ক্যাটারাক্ট (Cararact)। বৃদ্ধ বয়সে যত লোক অন্ধ হয়ে যায় তার বেশীর ভাগই হয় চোখে ছানি পড়ার কারনে। মনে রাখতে হবে এই অন্ধত্ব স্থায়ী নয়, সঠিক সময়ে চিকিৎসা করালে এই রোগী আবার দৃষ্টি ফিরে পাবে।

অনেক সময় জন্মগত ভাবেও শিশুছানি পরা চোখ নিয়ে জন্মাতে পারে তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এই রোগটি বৃদ্ধ বয়সে হতে দেখা যায়। সাধারনত ৫০ বছর বয়সে এই রোগটি হতে শুরু করে। তবে এর আগে যে হতে পারেনা তা নয়। ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তের সুগার অনিয়ন্ত্রিত থাকলে এ রোগ হবার সুযোগ অনেক বেশী থাকে। অনেক সময় চোখে আঘাত পেলে, রেডিয়েশনের কারনে, চোখে কোন কেমিক্যাল লাগলে কিংবা বিদ্যুতায়িত হবার কারনেও এই রোগ অল্প বয়সে হতে পারে।

চোখে ছানি পরা শুরু করলে রোগের প্রাথমিক পর্যায়ে সবকিছু ঝাপসা দেখা যায়, অনেক সময় কোনো জিনিসের দুইটি করে প্রতিবিম্ব দেখা যায়। কখনো কখনো আবার চোখে রংধনুর সাত রঙ ভেসে উঠে। এসব রোগীরা সাধারনত সন্ধ্যায় বা রাতের অন্ধকারে কিছুটা ভালো দেখে। তবে ছানি যখন পরিপক্ক হয়ে যায় রোগী তখন তার দৃষ্টি ক্ষমতা পুরোপুরি হারিয়ে ফেলে।

ক্যটারাক্ট বা চোখের ছানির চিকিৎসা অবশ্যই একজন চক্ষুবিশেষজ্ঞের (Opthalmologist)তত্ত্বাবধানে করাতে হবে। রোগের প্রাথমিক পর্যায়ে কালোচশমা বা সানগ্লাশ পড়লে রোগীর দৃষ্টির কিছুটা উন্নতি হয়, চোখে এট্রপিন জাতীয় ড্রপ ব্যবহার ও এতে কিছুটা সাহায্য করে থাকে। ছানি পরিপক্ক হয়ে গেলে অপারেশনই এর একমাত্র চিকিৎসা। অপারেশন করে চোখের ভেতর লেন্স লাগিয়ে নিলে রোগী আবার পূর্বের মতো দেখতে পারে। ফ্যাকো সার্জারির মতো আধুনিক সার্জারি চোখের ছানি পরা রোগটির চিকিৎসা আরো সহজ, ঝামেলামুক্ত ও ফলপ্রসু করে তুলেছে।

 

 

সুস্বাস্থ্য সুপারিশ করুন

এই সাইটের সকল তথ্য শুধুমাত্র চিকিৎসা সংক্রান্ত জ্ঞানার্জন ও সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রকাশিত যা কোন অবস্থাতেই চিকিৎসকের বিকল্প নয়রোগ নির্নয় ও তার চিকিৎসার জন্য সংশ্লিস্ট চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া বাঞ্ছনীয়