সুস্বাস্থ্য.কম

সুস্থ্য দেহ ও সতেজ মনের জন্য...

  • Increase font size
  • Default font size
  • Decrease font size

ঋতুচক্রে স্তনে ব্যথা বা সাইক্লিকাল মাস্টালজিয়া

E-mail Print

অনেক মেয়েরাই ঋতুচক্রের সময় তাদের স্তনে তীব্র ব্যথা অনুভব করে। একে মাস্টালজিয়া বলা হয়। এ ধরনের ব্যথার কারনে তার স্বাভাবিক জীবন যাত্রা অনেক সময় অচল হয়ে পরে, মেয়েটি নিদ্রাহীনতায় ভোগে এবং তার স্বাভাবিক যৌন জীবনও ব্যাহত হয়। মাস্টালজিয়া এসব মেয়েদের মনে তীব্র ভীতির সঞ্চার করে থাকে।

অনেক মেয়েই ধারনা করে যে স্তনের এই ব্যথা বুঝিবা স্তন ক্যান্সার এর কারনে হয় কিন্ত তাদের এই ধারনা একদমই ঠিক নয়।ঋতুচক্র বা মাসিকের সময় ইসট্রোজেন হরমোনের প্রতি তাদের স্তনের বাড়তি স্পর্শকাতরতার কারনেই অনেক সময় এই সমস্যাটির সৃষ্টি হয়। স্তন ক্যান্সার বা অন্য কোনো জটিল রোগে এমন ব্যথা হবার কোনোই সুযোগ নেই।

কারো মাস্টালজিয়া হচ্ছে চিন্তা করলে চিকিৎসকের (ব্রেস্ট সার্জন) পরামর্শ নেয়া উচিত। এই সময় মেয়েটিকে সারাদিন একদম সঠিক মাপের (Appropriately fitting) একটি ব্রা (Supportive bra) পরে থাকতে হয় এবং রাতের বেলা একটি তুলতুলে নরম ব্রা (Sports bra) পরে থাকতে হয়। এসময় কফি পান করলে ব্যথার তীব্রতা বাড়তে পারে তাই এই সকল পানীয় এড়িয়ে চলতে হবে।

চিকিৎসক শুরুতেই জানতে চাইতে পারেন মাসের ঠিক কয়দিন এবং কি মাত্রায় এই ব্যথা থাকে। তাই ভুক্তভোগীকে অবশ্যই এর সঠিক বর্ণনা দিতে হবে। প্রথমেই মনে রাখতে হবে এটা কোনো রোগ নয়, শুধু একটি উপসর্গ, এজন্য স্তন বা মেয়েটি কারোরই কোনো ক্ষতি হচ্ছেনা। ব্যথার স্থায়ী নিবারনের জন্য চিকিৎসকগন অয়েল অব ইভিনিং প্রিম্রোজ নামক একধরনের অসুধ তিন মাসের জন্য সেবন করার উপদেশ দিয়ে থাকেন এবং এতে ৩৫ উর্ধ্ব বেশীর ভাগ মহিলাই ভালো অনুভব করেন। যাদের খুব তীব্র ব্যথা থাকে তাদের ইস্ট্রোজেন বিরোধী অসুধ যেমন ডানাজল বা টেমোক্সিফেন অথবা প্রলাকটিন বিরোধী ব্রোমোক্রিপটিন বা এল,এইচ,আর,এইচ এগোনিস্ট সেবন করার পরামর্শ দেয়া হয়।

যাদের স্তনের ব্যথা ঋতুচক্রের সাথে সম্পর্কিত নয় তাদের চিকিৎসা কিন্ত ভিন্ন। এসব মহিলার ক্ষেত্রে প্রথমেই জেনে নিতে হবে এটা সত্যি সত্যিই স্তনের ব্যথা না বুকের মাংশ পেশী বা অন্য কোথাও এর উৎস। যদি সত্যিই স্তনের ব্যথা হয় তাহলে অবশ্যই স্তন বায়োপসি করে নিশ্চিত হতে হবে যে তার স্তন ক্যান্সার হয়নি। এটা নিশ্চিত করতে পারলে এসব ক্ষেত্রে ব্যথানাশক অসুধ সেবন অথবা ব্যথার স্থানে অবশ করা ইঞ্জেকশন ব্যবহার করে এই সমস্যা থেকে নিস্তার পাওয়া যেতে পারে।

 

সুস্বাস্থ্য সুপারিশ করুন

এই সাইটের সকল তথ্য শুধুমাত্র চিকিৎসা সংক্রান্ত জ্ঞানার্জন ও সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রকাশিত যা কোন অবস্থাতেই চিকিৎসকের বিকল্প নয়রোগ নির্নয় ও তার চিকিৎসার জন্য সংশ্লিস্ট চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া বাঞ্ছনীয়