সুস্বাস্থ্য.কম

সুস্থ্য দেহ ও সতেজ মনের জন্য...

  • Increase font size
  • Default font size
  • Decrease font size

ফুসফুসের ফোঁড়া (Lung abscess)

E-mail Print

শরীরের কোথাও পুঁজ বা Pus জমলে আমরা তাকে ফোঁড়া বলি, এই ফোঁড়া যে শুধু ত্বকেই হয় তা কিন্ত নয়, শরীরের প্রায় সব অংগেই পুঁজ জমে এমন ফোঁড়া হতে পারে, ফুসফুসও তার ব্যতিক্রম নয়। নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কিয়েকটেসিস, এটেলেকটেসিস, সেপটিসেমিয়া, ফুসফুসের টিউমার বা ক্যান্সার এসব রোগে সাধারনত ফুসফুসে পুঁজ জমতে (Lung abscess) দেখা যায়। এছাড়া যে সকল রোগে রোগীর রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা কমে যায় কিংবা রোগীর চেতনবোধ কমে যায় (Stroke, Alcohol intoxication, Coma, Unconsciousness) সেসব রোগেও এই লাং এবসেস হতে পারে।

এ রোগে রোগীর শরীরে কাপুনিসহ তীব্র জ্বর হয়, সেই সাথে দুর্গন্ধযুক্ত কফ-কাশি, বুকে ব্যথা, শ্বাস কষ্ট, কাশির সাথে রক্ত যাওয়া, অত্যাধিক ক্লান্তি বা অবসাদ লাগা, প্রচুর ঘাম হওয়া সহ নানা উপসর্গ দেখা দেয়। লাং এবসেস এক ধরনের ইনফেকশন জাতীয় রোগ হলেও এটা কোনো সাধারন ইনফেকশন নয়। এ রোগে অবহেলা করার কোনো সুযোগ নেই, সাথে সাথে চিকিৎসা শুরু করতে হবে।

বুকের এক্সরে করলে এই রোগ সম্বন্ধে ধারনা পাওয়া যায়, বুকের সিটি স্ক্যান করলে রোগের ব্যপ্তি সম্পর্কে সঠিক তথ্য মিলে। এছাড়া কফ এর কালচার পরীক্ষা, রক্ত পরীক্ষা সহ বিশেষ পদ্ধতিতে সুই দিয়ে পুঁজ বের করে এনে (FNAC- Fine Needle Aspiration Cytology) তার পরীক্ষা করিয়ে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী রোগের চিকিৎসা শুরু করতে হয়। লাং এবসেসটি জটিল না হলে বা ছোটো হলে কালচার এ ফলাফল অনুযায়ী এন্টিবায়োটিক শিরায় নিলে অধিকাংশ ক্ষেত্রে রোগটি ভালো হয়ে যায়। তবে জটিল রোগে রোগীকে অপারেশন করা ছাড়া অন্য কোনো পথ থাকেনা। থোরাসিক সার্জন গন এই অপারেশন করে থাকেন, সফল অপারেশন এর পর রোগী পুরোপুরি সুস্থ হয়ে যায়। তবে ক্যান্সার বা টিউমার এর কারনে এই রোগ হয়ে থাকলে প্রকৃত রোগের চিকিৎসা হবার আগ পর্যন্ত রোগী পুরোপুরি সুস্থ হয়না।

 

সুস্বাস্থ্য সুপারিশ করুন

এই সাইটের সকল তথ্য শুধুমাত্র চিকিৎসা সংক্রান্ত জ্ঞানার্জন ও সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রকাশিত যা কোন অবস্থাতেই চিকিৎসকের বিকল্প নয়রোগ নির্নয় ও তার চিকিৎসার জন্য সংশ্লিস্ট চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া বাঞ্ছনীয়